গ্রাফ্ট ভার্সেস হোস্ট ডিজিজের আদ্যোপান্ত

রোগব্যাধি স্বাস্থ্য সংবাদ

গ্রাফ্ট-বনাম-হোস্ট ডিজিজ (GvHD) হল এমন একটি সিস্টেমিক ডিসঅর্ডার যেখানে গ্রাফ্ট এর ইমিউন কোষ, হোস্টকে বহিরাগত হিসাবে স্বীকৃতি দেয় এবং প্রাপকের শরীরের কোষগুলিকে আক্রমণ করে। “গ্রাফ্ট” বলতে ট্রান্সপ্ল্যান্ট করা বা দান করা টিস্যু বোঝায় এবং “হোস্ট” বলতে প্রাপকের টিস্যু বোঝায়।

অ্যালোজেনিক হেমাটোপয়েটিক স্টেম সেল ট্রান্সপ্লান্ট (HCT) এর পরে এটি সাধারণত হয়ে থাকে।এর প্রভাব মৃদু থেকে প্রাণঘাতী হতে পারে।

বিকল্প নাম:
জিভিএইচডি; অস্থি মজ্জা প্রতিস্থাপন – গ্রাফ্ট-বনাম-হোস্ট রোগ; স্টেম সেল ট্রান্সপ্ল্যান্ট – গ্রাফ্ট-বনাম-হোস্ট রোগ; অ্যালোজেনিক ট্রান্সপ্লান্ট – জিভিএইচডি।

GVHD এর প্রকারভেদ:

GVHD -কে ট্রান্সপ্লান্ট-পরবর্তী ১০০ দিনের পর্যবেক্ষণের উপর ভিত্তি করে তীব্র(Acute) এবং দীর্ঘস্থায়ী(Chronic) তে শ্রেণীবদ্ধ করা হয়েছে। এটিকে পরবর্তীতে উপশ্রেণীবদ্ধ করা হয়েছে ক্লিনিকাল প্রকাশের উপর ভিত্তি করে যা NIH দ্বারা স্বীকৃত :

1. তীব্র ক্লাসিক GVHD: তীব্র GVHD এর ক্লিনিকাল বৈশিষ্ট্য সমূহ প্রতিস্থাপনের 100 দিনের মধ্যে উপস্থিত হয়।

2. ক্রমাগত, পুনরাবৃত্ত, বা দেরীতে শুরু হওয়া তীব্র GVHD: এটি তীব্র GVHD-র ক্লিনিকাল বৈশিষ্ট্যসহ প্রতিস্থাপনের 100 দিন পরে প্রকাশ পায়।

3. ক্লাসিক ক্রনিক GVHD: ট্রান্সপ্লান্টের 100 দিন পরে দীর্ঘস্থায়ী GvHD-এর ক্লিনিকাল বৈশিষ্ট্য সহ প্রকাশ পায়।

4. ওভারল্যাপ সিন্ড্রোম: ট্রান্সপ্লান্ট-পরবর্তী সময়ে তীব্র এবং দীর্ঘস্থায়ী GvHD উভয় বৈশিষ্ট্যের সাথে প্রকাশ পেতে পারে।

কারণসমূহ:

অস্থি মজ্জা, বা স্টেম সেল প্রতিস্থাপনের পরে যখন কেউ তা অন্য কারো কাছ থেকে গ্রহণ করে তখন GVHD ঘটতে পারে। যখন কেউ তাদের নিজস্ব কোষ গ্রহণ করে তখন GVHD হয় না।

প্রতিস্থাপনের আগে, সম্ভাব্য দাতাদের কাছ থেকে টিস্যু এবং কোষগুলি প্রাপকের সাথে কতটা ঘনিষ্ঠভাবে মেলে তা পরীক্ষা করা হয়। ম্যাচ কাছাকাছি হলে GVHD হওয়ার সম্ভাবনা কম, বা হলেও কম ঝুঁকিপূর্ণ হবে। GVHD এর সম্ভাবনা হল:

• প্রায় 35% থেকে 45% যখন দাতা এবং প্রাপক সম্পর্কযুক্ত।
• প্রায় 60% থেকে 80% যখন দাতা এবং প্রাপক সম্পর্কযুক্ত নয়।

GVHD-র ঝুঁকি বাড়াতে পারে এমন অন্যান্য জিনিসগুলির মধ্যে রয়েছে:

• বয়সের মাত্রা।
• দাতার প্রতিস্থাপিত অংশে থাকা বেশিসংখ্যক T-কোষ নামে পরিচিত
• শ্বেত রক্তকণিকা।
• প্রাপক পুরুষ এবং দাতা যদি মহিলা হয়, যার সন্তান হয়েছে।
• সাইটোমেগালোভাইরাসের বিকাশ (একটি সাধারণ ভাইরাস যা সুস্থ শরীরে সমস্যা সৃষ্টি করে না)।

আপনার অভিন্ন যমজ না থাকলে, আপনার উপযুক্ত ডোনার হবে আপনার ভাইবোন বা পিতামাতা। ডাক্তাররা পেরিফেরাল রক্ত ​​বা অস্থি মজ্জার পরিবর্তে নাভির রক্ত ​​থেকে দাতা কোষগুলি গ্রহণ করলেও ঝুঁকি কমে যায়।

লক্ষণসমূহ:
তীব্র GVHD সাধারণত ট্রান্সপ্ল্যান্টের 6 মাসের মধ্যে বা দেরীতে ঘটে। প্রধানত এতে ইমিউন সিস্টেম, ত্বক, লিভার এবং অন্ত্র প্রভাবিত হয়। সাধারণ তীব্র লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে:

• জন্ডিস বা লিভারের সমস্যা।
• পেটে ব্যথা, বমি বমি ভাব, বমি এবং ডায়রিয়া।
• ত্বকে ফুসকুড়ি, চুলকানি, ত্বকের অংশে লালভাব।

ক্রনিক GVHD সাধারণত ট্রান্সপ্ল্যান্টের 3 মাসেরও বেশি সময় পরে শুরু হয় এবং সারাজীবন স্থায়ী হতে পারে। দীর্ঘস্থায়ী উপসর্গের অন্তর্ভুক্ত:

• চোখ- মুখের শুষ্কতা, জ্বলন অনুভূতি, মুখের ভিতরে সাদা দাগ।
• ক্লান্তি, পেশী দুর্বলতা, এবং দীর্ঘস্থায়ী ব্যথা।
• জয়েন্টে ব্যথা বা শক্ত হয়ে যাওয়া।
• বিবর্ণ ত্বক, সেই সাথে ফুসকুড়ি, চামড়া টানটান বা মোটা হয়ে যাওয়া।
• ফুসফুসের ক্ষতির কারণে শ্বাসকষ্ট।
• যোনির শুষ্কতা।
• ওজন কমে যাওয়া।
• ভঙ্গুর চুল এবং অকালে ধূসর হয়ে যাওয়া।
• বুকে ব্যথা হওয়া।

পরীক্ষা-নিরীক্ষা:
GVHD দ্বারা সৃষ্ট সমস্যাগুলি নির্ণয় এবং নিরীক্ষণের জন্য বেশ কয়েকটি ল্যাব এবং ইমেজিং পরীক্ষা করা হয়। এগুলোর অন্তর্ভুক্ত:

• পেটের এক্স-রে।
• পেট এবং বুকের সিটি স্ক্যান।
• লিভার ফাংশন পরীক্ষা।
• PET স্ক্যান।
• এমআরআই।
• ক্যাপসুল এন্ডোস্কোপি।
• লিভার বায়োপসি।

ত্বকের বায়োপসি, মুখের শ্লেষ্মা ঝিল্লি, রোগ নির্ণয় নিশ্চিতে সাহায্য করতে

চিকিৎসা/ব্যবস্থাপনা:

হ্যামোপয়েটিক স্টেম সেল ট্রান্সপ্লান্ট(HCT)-র পরে সমস্ত রোগীদের GVHD এর জন্য প্রফাইল্যাকটিক চিকিৎসা নেয়া উচিত। চিকিৎসার প্রোটোকল প্রতিষ্ঠানভেদে ভিন্ন হয়, কিন্তু সাধারণত সাইক্লোস্পোরিন এবং মেথোট্রেক্সেটের সংমিশ্রণ ব্যবহার করা হয় ট্রান্সপ্লান্টেশন-পরবর্তী কয়েক মাস ধরে। অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল, অ্যান্টিভাইরাল এবং অ্যান্টিফাঙ্গাল প্রফাইল্যাক্সিস HCT-এর পরে যোগ করা হয় সাধারণত সংক্রমণের ঝুঁকি কমাতে।

কর্টিকোস্টেরয়েডগুলি সবচেয়ে বেশি ব্যবহার করা হয়।

কয়েক মাসব্যাপী পুরো কোর্স জুড়ে স্টেরয়েডের পর্যায়ক্রমিক টেপারিং GVHD ফ্লেয়ার প্রতিরোধ করার জন্য গুরুত্বপূর্ণ। দীর্ঘস্থায়ী GVHD রোগীদের সাধারণত স্টেরয়েডের দীর্ঘায়িত কোর্সের প্রয়োজন হয়, যা সাধারণত 2 – 3 বছর। কিছু রোগীর আজীবন চিকিৎসার প্রয়োজন হতে পারে। ডায়রিয়ার পরিমাণ কমানোর প্রয়াসে অক্ট্রোটাইড ব্যবহার করা যেতে পারে।

স্টেরয়েডের পাশাপাশি অন্যান্য এজেন্টের মধ্যে রয়েছে মাইকোফেনোলেট, ইটানারসেপ্ট, পেন্টোস্ট্যাটিন, মনোক্লোনাল অ্যান্টিবডি, সিরোলিমাস, আলফা-১-অ্যান্টিট্রিপসিন, মেসেনকাইমাল স্ট্রোমাল কোষ এবং এক্সট্রাকর্পোরিয়াল ফটোফেরেসিস। যদিও, এদের কার্যকারিতা অস্পষ্ট।

স্টেরয়েডের ডোজ এবং সময়কাল হ্রাস করার প্রয়াসে দীর্ঘস্থায়ী GVHD-এর চিকিৎসা পদ্ধতিতে সাইক্লোস্পোরিন যুক্ত করা যেতে পারে।

GvHD কি অনিরাময়যোগ্য:

GVHD সাধারণত প্রতিস্থাপনের এক বছর বা তার পরে চলে যায়, যখন আপনার শরীর দাতা কোষ থেকে নিজস্ব শ্বেত রক্তকণিকা তৈরি করতে শুরু করে। কিন্তু কিছু ক্ষেত্রে অনেক বছর যাবত এটির চিকিৎসা চালিয়ে যেতে হয়।

প্রতিরোধ এবং রোগীর শিক্ষা:

সময়মত উপযুক্ত চিকিৎসা এবং প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থার পাশাপাশি, রোগীরা GvHD ব্যবস্থাপনার উন্নতির জন্য কিছু প্রতিকারমূলক ব্যবস্থা সম্পর্কে পরামর্শ এবং শিক্ষা পেতে পারে।

ত্বকের যত্ন: ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করুন,সূর্যালোকে বাইরে যাওয়ার সময় উপযুক্ত SPF যুক্ত সানস্ক্রিন লোশন প্রয়োগ করুন, সেলাই করা জায়গা বা অন্যান্য অঞ্চলে আঁচড় এড়ান, লম্বা হাতা এবং প্যান্ট পরুন।

মুখের যত্ন: টপিকাল ফ্লোরাইড সহ দাঁতের স্বাস্থ্যবিধি কাঙ্ক্ষিত।

ডায়েট: কী খাবেন তা বেছে নেওয়ার বিষয়ে সর্বোচ্চ যত্নশীল হোন। মসলাযুক্ত ঝাল খাবার যা পাতলা পায়খানার কারণ হতে পারে তা এড়িয়ে চলা।

স্বাস্থ্যবিধি: সংক্রামক উৎস থেকে দূরে থাকা, বাইরে যাওয়ার সময় মুখে এবং নাকে মাস্ক পরা, হাত-পা পরিষ্কার রাখা।

সমস্ত রোগী এবং যত্নশীলদের ইনফ্লুয়েঞ্জা এবং নিউমোকোকাসের বিরুদ্ধে টিকা নেওয়া উচিত।

লেখকঃ সানজিদা ইসলাম চৈতী
বিভাগঃ ফার্মেসী
সেশনঃ ২০১৭-২০১৮

Leave a Reply

Your email address will not be published.