মাল্টিড্রাগ-প্রতিরোধী ব্যাকটেরিয়া এবং প্রতিরোধের উপায়

করোনা প্রাথমিক চিকিৎসা বিবিধ রোগব্যাধি স্বাস্থ্য টিপস স্বাস্থ্য সংবাদ

প্যাথোজেনিক ব্যাকটেরিয়াতে একাধিক অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল এজেন্টের প্রতিরোধের উত্থান বর্তমানে জনস্বাস্থ্যের জন্য হুমকি হয়ে উঠেছে কারণ এই ব্যাকটেরিয়া দ্বারা সৃষ্ট সংক্রমণ রোধের জন্য কার্যকর অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল এজেন্ট কম, এমনকি কখনও কখনও নেই।

WHO এর মতে, যখন অণুজীব গুলো নিজেদের মধ্যে পরিবর্তন এর মাধ্যমে, প্রচলিত অণুজীব নিরাময়কারি একাধিক অ্যান্টিবায়োটিকের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলে তখন তাদের মাল্টিড্রাগ-প্রতিরোধী ব্যাকটেরিয়া বলে।
আন্তর্জাতিক বিশেষজ্ঞদের একটি দল ইউরোপিয়ান সেন্টার ফর ডিজিজ প্রিভেনশন অ্যান্ড কন্ট্রোল (ECDC) এবং সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন (CDC) দ্বারা একটি যৌথ উদ্যোগের মাধ্যমে একত্রিত হয়েছিল, যাতে স্ট্যাফিলোকক্কাস, এনটারোকক্কাস, এনটারোব্যাকটেরিয়া, সিউডোমোনাস এরোগিনোসা এবং এক্টিনোব্যাকটোরে থাকা ড্রাগ এর বিরুদ্ধে প্রতিরোধের প্রোফাইলগুলি বর্ণনা করার জন্য একটি মানসম্মত আন্তর্জাতিক পরিভাষা তৈরি করা যায়। মূলত, এই ব্যাকটেরিয়াগুলোর অ্যান্টিবায়োটিকের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলার শক্তিশালী ক্ষমতা রয়েছে, যা তাদের জন্য প্রাকৃতিক উপহার।
অতিরিক্ত অ্যান্টিবায়োটিক এবং কৃষিতে বেশি পরিমাণে কীটনাশক এবং সংশ্লিষ্ট যৌগের ব্যাপক এবং প্রায়শই নির্বিচারে ব্যবহারের কারণে বিশ্ব, অ্যান্টিবায়োটিক প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধির একটি বৈশ্বিক সমস্যায় ভুগছে। আব্রাহাম এবং চেইন (১৯৪০) রিপোর্ট করেছেন যে ব্যাকটেরিয়ায় ওষুধের প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি ব্যাকটেরিয়াতে বিভিন্ন ধরণের এনজাইমের উপস্থিতির জন্য দায়ী এবং
সতর্ক করেন যে অ্যান্টিবায়োটিকের অপব্যবহার এই এমডিআর ( মাল্টিড্রাগ রেসিস্ট্যান্ট ) এর বিকাশ এবং মিউট্যান্ট স্ট্রেনগুলির প্রোপাগেশন বৃদ্ধি করবে। এমডিআর অরগানিজম এর সংক্রমণ ফলে অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল থেরাপির কার্যকারিতা বিলম্বিত হতে পারে এবং রোগীর দ্রুত সুস্থ হওয়ার সম্ভাবনা কমে যায়। যখন একবার ব্যাকটেরিয়া অ্যান্টিবায়োটিকের সংস্পর্শে আসে, কিন্তু এটি যদি ওই অ্যান্টিবায়োটিকের মাধ্যমে মারা না যায়, তখন ঔই ব্যাকটেরিয়া ভবিষ্যতে অ্যান্টিবায়োটিককে ধ্বংস করার জন্য তাদের কোষের গঠন বা বিপাককে অভিযোজিত করে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে পারে। ব্যাকটেরিয়াগুলোর প্রতিরোধ অর্জনের কিছু পদ্ধতি রয়েছে, যার মধ্যে রয়েছে জেনেটিক মিউটেশন, বর্তমানে তার মধ্যে থাকা জেনেটিক উপাদানের পরিবর্তন বা নতুন জেনেটিক
উপাদান অর্জন।
একবার যখন একজন ব্যক্তি এমডিআর ( মাল্টিড্রাগ রেসিস্ট্যান্ট ) ব্যাকটেরিয়া দ্বারা সংক্রামিত হয়, তখন সহজে নিরাময় করা সম্ভব হয় না এবং তাকে হাসপাতালে আরও বেশি সময় ব্যয় করতে হয় এবং ব্রড-স্পেকট্রাম অ্যান্টিবায়োটিকের একাধিক চিকিৎসার প্রয়োজন হয়, যা কম কার্যকর, বেশি বিষাক্ত এবং বেশি ব্যয়বহুল। তাই, জীবাণুনাশক সম্ভাবনা উন্নত করতে অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল যৌগগুলির বিকাশ বা পরিবর্তন এই আধুনিক যুগে গবেষণার একটি অগ্রাধিকার ক্ষেত্র।
ন্যানোটেকনোলজি ন্যানো পার্টিকেল আকারে ধাতুর গুরুত্বপূর্ণ বৈশিষ্ট্যগুলিকে সংশোধন এবং বিকাশের জন্য একটি ভাল প্ল্যাটফর্ম সরবরাহ করে। গবেষকরা এমডিআর ব্যাকটেরিয়ার উত্থানের সমস্যা সমাধানের জন্য সাধারণভাবে ন্যানো পার্টিকেল এবং বিশেষ করে সিলভার ন্যানো পার্টিকেলের দিকে ঝুঁকছেন। ন্যানোস্কেল মৌলগুলি তাদের বিশাল আকারের মৌলগুলির চেয়ে বেশি সুবিধাজনক। ন্যানো পারটিকেল এর তাদের ক্ষুদ্র আকারের জন্য বেশ কয়েকটি বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যা রোগ সৃষ্টিকারী প্যাথোজেনগুলির বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য ওষুধের ভেক্টর হিসাবে তাদের অনুকূল করে তোলে। Ag, Au, Al, Cu, Ce, Cd, Mg, Ni, Se, Pd, Ti, Zn এবং সুপার-প্যারাম্যাগনেটিক FeAgNP গুলিকে ব্যাকটেরিয়ার বিরুদ্ধে সবচেয়ে কার্যকরী ন্যানোমেটেরিয়াল হিসাবে বিবেচনা করা হয় তবে অন্যান্য ধাতব NPs, যেমন CuONPs, TiONPs, AuNPs, এবং Fe3O2NPs, এছাড়াও ব্যাকটেরিয়াঘটিত প্রভাব প্রদর্শন করেছে। গবেষকরা TEM এনালাইসিস এবং EDAX অধ্যয়ন সম্পাদন করে SEM এনালাইসিসে সিলভার ন্যানো পার্টিকেল এবং মৃত ব্যাকটেরিয়া কোষের সমন্বয়ে গঠিত সমষ্টির গঠন পর্যবেক্ষণ করেছে, এবং এই সিদ্ধান্তে পৌঁছেছেন যে, সিলভার ন্যানো পার্টিকেলগুলি ব্যাকটেরিয়া কোষের ঝিল্লির বিল্ডিং উপাদানগুলির সাথে সংযুক্ত হয়, যার ফলে কোষের ক্ষতি হয়।

এছাড়াও সতর্কতার মাধ্যমে এটা অনেক অংশে প্রতিরোধও করা সম্ভব। যেমন-

১) অল্প সময়ের জন্য অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল ব্যবহার করা উচিত।

২) ডোজ পদ্ধতি সঠিকভাবে
অনুসরণ করা উচিত।

৩) ব্রড স্পেকট্রাম অ্যান্টিবায়োটিকের পরিবর্তে নির্দিষ্ট অ্যান্টিবায়োটিক
গ্রহণ করা উচিত।

৪) ভাইরাল সংক্রমণের জন্য অ্যান্টিবায়োটিক গ্রহণ করা উচিত নয়

৫)অ্যান্টিবায়োটিকের স্ব-ঔষধ এড়ানো উচিত,

৬) টিকাদান, নিরাপদ খাদ্য তৈরি, হাত ধোয়া প্রতিরোধী ছড়ানো প্রতিরোধ করতে পারে অণুজীব।
উপসংহারে বলা যায়, অ্যান্টিবায়োটিক রেজিস্ট্যান্স হল একটি অন্যতম বড় স্বাস্থ্য সমস্যা যা আমাদের আগামী বছরগুলিতে মোকাবেলা করতে হবে। যদিও ড্রাগ-প্রতিরোধী স্ট্রেনের বিরুদ্ধে কার্যকরী নতুন অ্যান্টিবায়োটিক আবিষ্কার যথাযথ ঔষধ সেবন এবং সচেতনতা অগ্রগতি আনতে পারে।

লিখেছেনঃ
Fahmida Hossain Bonna
Department of Pharmacy (1st Year)
University of Asia Pacific

তথ্যসূত্রঃ

  1. Anderson DJ, Engemann JJ, Harrell LJ, Carmeli Y, Reller LB, Kaye KS. Predictors of
    mortality in patients with bloodstream infection due to ceftazidime-resistant Klebsiella
    pneumoniae. Antimicrob Agents Chemother 2006;

6 thoughts on “মাল্টিড্রাগ-প্রতিরোধী ব্যাকটেরিয়া এবং প্রতিরোধের উপায়

  1. Such an informative article. Learned some new things. I must complement about the authors writing style, it’s quite catchy and formal at the same time. We’ll be waiting for such amazing articles from now on.

Leave a Reply

Your email address will not be published.