ফুসফুস ক্যান্সার

রোগব্যাধি স্বাস্থ্য সংবাদ

ক্যান্সার বা কর্কটরোগ অনিয়ন্ত্রিত কোষ বিভাজন সংক্রান্ত রোগসমূহের সমষ্টি। এখনও পর্যন্ত এই রোগে মৃত্যুর হার অনেক বেশি। কারণ প্রাথমিক অবস্থায় ক্যান্সার রোগ সহজে ধরা পড়ে না, ফলে শেষ পর্যায়ে গিয়ে ভালো কোন চিকিৎসা দেয়াও সম্ভব হয় না. বর্তমানে বিশ্বে ফুসফুস ক্যান্সারে আক্রান্ত রোগীদের সংখ্যা সবথেকে বেশি.

ক্যান্সার ক্যান্সার বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, প্রতি বছর প্রায় ২ মিলিয়ন নতুন ফুসফুসের ক্যান্সারের রোগ নির্ণয় করা হয় এবং ফুসফুসের ক্যান্সারের কারণে প্রতি বছর প্রায় ১.৭৬ মিলিয়ন মৃত্যুর খবর পাওয়া যায়। এটি আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্রের পুরুষ এবং মহিলাদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি দেখা যায় ক্যান্সার। ১ পুরুষের মধ্যে প্রায় ১৫ জন এবং ১ জনের মধ্যে ১৭ জন তাদের জীবদ্দশায় এই ক্যান্সার হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে.

ফুসফুসের ক্যান্সারের খুব প্রাথমিক পর্যায়ে কোনও লক্ষণ বা লক্ষণ দেখা যায় না। তবে, রোগটি বাড়ার সাথে সাথে ফুসফুসের ক্যান্সারের লক্ষণগুলি বিকাশ লাভ করে।

ফুসফুসের ক্যান্সারের প্রধান লক্ষণগুলি নিম্নরূপ:

কাশির সাথে রক্ত পরা,

অবিরাম বুকের সংক্রমণ,

অবিরাম নিঃশ্বাস,

ক্ষুধার অভাব এবং অব্যক্ত ওজন হ্রাস,

শ্বাসকষ্ট বা কাশি চলাকালীন ব্যথা.

ফুসফুস ক্যান্সারের কারণ:

ফুসফুস ক্যান্সারের অন্যতম কারণ হচ্ছে তামাক দ্রব্য সেবন এবং বায়ু দূষণ. এছাড়া অ্যাসবেস্টস এক্সপোজার, রেডনের এক্সপোজার, কর্ম ক্ষেত্রে ক্যান্সার সৃষ্টিকারী পদার্থ যেমন ইউরেনিয়াম আর্সেনিক এবং ডিজেল নিষ্কাশন এর মত রাসায়নিক পদার্থ সমূহের এক্সপোজার ফুসফুস ক্যান্সারের জন্য দায়ী.

ফুসফুস ক্যান্সারের ধরন:

প্রধানত দুই ধরনের ফুসফুস ক্যান্সার বিদ্যমান.

 ক্ষুদ্র কোষ/স্মল সেল ফুসফুস ক্যান্সার:

এটি ওট সেল ক্যান্সার নামেও পরিচিত। সমস্ত ফুসফুসের ক্যান্সারের প্রায় 10% থেকে 15% পর্যন্ত স্মল সেল ফুসফুস ক্যান্সারে আক্রান্ত হতে পারে. আমেরিকান ক্যান্সার সোসাইটির মতে, ক্ষুদ্র কোষের ক্ষেত্রে প্রায় ০% লোকের ক্যান্সার নির্ণয়ের সময় আগেই ছড়িয়ে পরে.

 বৃহৎ কোষ/নন স্মল সেল ফুসফুস ক্যান্সার:

এটি সমস্ত ফুসফুস ক্যান্সারের 10-15% এর জন্য দায়ী। বড় সেল কার্সিনোমাস ফুসফুসের যে কোনও জায়গায় শুরু হতে পারে এবং দ্রুত বাড়তে থাকে, এটি চিকিৎসা করে আরোগ্য লাভ করা খুবই কঠিন। বৃহত কোষ কার্সিনোমের একটি উপপ্রকার হল বড় সেল নিউরো এন্ডোক্রাইন কার্সিনমা এবং এটি ফুসফুসের একটি দ্রুত বর্ধমান ক্যান্সার।

ফুসফুস ক্যান্সারের পর্যায় :

প্রথম পর্যায়: এ পর্যায়ে ক্যান্সার ফুসফুসে স্থানীয় হয় এবং ফুসফুসের বাইরে ছড়িয়ে যায়নি।

দ্বিতীয় পর্যায়: এ পর্যায়ে ক্যান্সার ফুসফুস এবং আশেপাশের লিম্ফ নোডে উপস্থিত রয়েছে।

তৃতীয় পর্যায়: ক্যান্সারটি বুকে মাঝখানে ফুসফুস এবং লিম্ফ নোডে উপস্থিত থাকে। তৃতীয় পর্যায়ে প্রাথমিক অবস্থায় ক্যান্সারটি কেবলমাত্র বুকের ঠিক একই দিকে লিম্ফ নোডে উপস্থিত থাকে যেখানে ক্যান্সার প্রথমে বাড়তে শুরু করে। তৃতীয় পর্যায়ে পরবর্তীতে ক্যান্সারটি বুকের বিপরীত দিকে বা কলারবোনের উপরে লিম্ফ নোডে ছড়িয়ে পরে.

চতুর্থ পর্যায়: ক্যান্সার উভয় ফুসফুস, ফুসফুসের আশেপাশের অঞ্চল বা দূরবর্তী অঙ্গগুলিতে
ছড়িয়ে পরে.

ফুসফুস ক্যান্সার প্রতিরোধে ডায়েট এবং পুষ্টিকর খাদ্যের ভূমিকা:

ফুসফুসের ক্যান্সারের মতো প্রাণঘাতী রোগ থেকে দূরে থাকার জন্য সঠিক খাবার এবং পরিপূরক সহ সঠিক পুষ্টি/ডায়েট গুরুত্বপূর্ণ। ফুসফুসের ক্যান্সারের চিকিৎসা, জীবনমানের উন্নতি, শক্তি ও শরীরের ওজন বজায় রাখা, নিয়মিত ব্যায়াম করা, পরোক্ষ ধূমপান হতে বিরত থাকা, কারসিনোজেন হতে দূরে থাকা এবং চিকিৎসার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া মোকাবেলায় রোগীদের সাহায্য করার ক্ষেত্রেও সঠিক খাবার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। ক্লিনিকাল এবং পর্যবেক্ষণমূলক গবেষণার উপর ভিত্তি করে, ফুসফুসের ক্যান্সারের ঝুঁকি কমাতে করতে ভিটামিন সি সমৃদ্ধ সবজি ফলমূল, ভিটামিন বি, ফলিক এসিড সমৃদ্ধ খাদ্য, রসুন টক দই কার্যকরী ভূমিকা পালন করে.

ফুসফুস ক্যান্সারের চিকিৎসায় সার্জারি,রেডিয়েশন থেরাপি, কেমোথেরাপি, ইমিউনোথেরাপি প্রয়োগ করা হয়.

References:

Blandin Knight, S., Crosbie, P. A., Balata, H., Chudziak, J., Hussell, T., & Dive, C.
(2017). Progress and prospects of early detection in lung cancer. Open biology,
7(9), 170070. https://doi.org/10.1098/rsob.170070

লিখেছেনঃ
Arpity Roy Fency
Professional Pharmacy (5th Year)
North South University

1 thought on “ফুসফুস ক্যান্সার

Leave a Reply

Your email address will not be published.